সিলেট ১২ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২৮শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৬ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

সাব- রেজিস্ট্রারকে হুমকি অবশেষে বহিষ্কার, নকল নবীশ বেলাল আহমদ মুরাদ

Stuff
প্রকাশিত অক্টোবর ৯, ২০২৩, ০৬:১১ অপরাহ্ণ
সাব- রেজিস্ট্রারকে হুমকি অবশেষে বহিষ্কার, নকল নবীশ বেলাল আহমদ মুরাদ

আওয়াজ প্রতিবেদক:: সিলেট সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের নকল নবীশ বেলাল আহমদ মুরাদের বিরুদ্ধে কাজে অনিয়ম এবং সাব রেজিস্ট্রারকে হুমকি প্রদানের অভিযোগ উঠেছে।

সোমবার এ ঘটনায় তাকে বহিস্কার আদেশ প্রদান করেন সিলেট জেলা- রেজিস্ট্রার মুন্সী মোখলেছুর রহমান।

জানা গেছে, সম্প্রতি সরকারের নিবন্ধন অধিদপ্তর থেকে আদেশ আসে দেশের সকল সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে। তাতে বলা হয়, বালাম বহিতে লিপিবদ্ধ কাজে উদাসীনতা, কাজে দায়িত্ব পালন না করা, মাসিক কার্যবিবরনি প্রস্তুত না করে মাসিক পারিশ্রমিক নিচ্ছেন এমন নকল নবীশদের সনাক্ত করতে হবে।

এমন আদেশে গত বছরের ৮ ডিসেম্বর সিলেট সদর সাব- রেজিস্ট্রার মাহবুবুর রহমান সিলেট কার্যালয়ে নিয়োজিত নকল নবীশদের ১২ মাসের পৃথক কার্য তালিকা তৈরীর আদেশ প্রদান করেন।

জানা গেছে, সিলেট সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের নিয়োজিত সকল নকল নবীশদের পৃথক কার্য তালিকা মিললেও নকল নবীশ বেলাল আহমদ মুরাদের কার্য তালিকায় মিলে ভিন্ন তথ্য। তিনি দীর্ঘ ৫ বছর ধরে সিলেট সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের বালাম বহিতে তার জন্য নির্ধারিত কোনো কাজই করেননি। তারপরও তিনি দীর্ঘদিন থেকে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ একটি অফিসে কর্মরত আছেন। এ ঘটনায় নকল নবীশ বেলাল আহমদ মুরাদের বেতন বিল বন্ধ করেন সিলেট সদর সাব- রেজিস্ট্রার মাহবুবুর রহমান।

২৫ জুন দুপুর ২টায় নকল নবীশ বেলাল আহমদ মুরাদকে সিলেট সদর সাব- রেজিস্ট্রার মাহবুবুর রহমান তার কক্ষে অবহিত করেন আপাতত তার বেতন প্রদান করা যাবে না। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মুরাদ সাব- রেজিস্ট্রার মাহবুবুর রহমানের সাথে অশালীন আচরণ করেন। তিনি কিভাবে অফিস করেন তা তিনি দেখে নিবেন বলে হুমকি প্রদান করেন।

এদিকে এঘটনায় সিলেট জেলা- রেজিস্ট্রার মুন্সী মোখলেছুর রহমান ৪ জুলাই বালাগঞ্জের সাব রেজিস্ট্রার মো. হাফিজুর রহমানকে সভাপতি, বিশ্বনাথের সাব রেজিস্ট্রার মেসবাহ উদ্দিন আহমদকে সদস্য ও কোম্পানীগঞ্জের সাব রেজিস্ট্রার মো. আখলাকুর রহমানকে সদস্য করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটিকে প্রতিবেদন প্রদান করার নির্দেশ দেন।

১৬ জুলাই তদন্ত কমিটির সভাপতি বালাগঞ্জের সাব রেজিস্ট্রার মো. হাফিজুর রহমান নকল নবীশ বেলাল আহমদ মুরাদের বক্তব্য ও অন্যান্যকে তদন্তে সহযোগিতার জন্য জানান। এসময় মুরাদ তার লিখিত বক্তব্য প্রদান করেন।
পরে তদন্ত কমিটি ঘটনার সত্যতাসহ নকল নবীশ বেলাল আহমদ মুরাদ দীর্ঘ ৫ বছর ধরে সিলেট সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে কোনো দায়িত্ব পালন করেননি মর্মে সত্যতা পায় এবং এসকল প্রমাণসহ সিলেট জেলা- রেজিস্ট্রার মুন্সী মোখলেছুর রহমান কাছে লিখিত তদন্ত প্রতিবেদন প্রেরণ করে।

এরই প্রেক্ষিতে নকল নবীশ বেলাল আহমদ মুরাদকে অফিস থেকে সাময়িক বহিস্কার প্রদান করেন সিলেট জেলা- রেজিস্ট্রার মুন্সী মোখলেছুর রহমান।

হুমকির বিষয় অস্বীকার করে নকল নবীশ বেলাল আহমদ মুরাদ।