সিলেট ১৩ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২৯শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৭ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

‘হাবু ভাই’ এখন বিবাহিত

admin
প্রকাশিত আগস্ট ২৬, ২০২৩, ০৭:০৭ পূর্বাহ্ণ
‘হাবু ভাই’ এখন বিবাহিত

ব্যাচেলর তকমা ঘুচিয়ে অবশেষে নতুন জীবনে পা রাখলেন ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ ধারাবাহিকের ‘হাবু ভাই’ খ্যাত অভিনেতা চাষী আলম। বৃহস্পতিবার (২৪ আগস্ট) রাতে গায়েহলুদের পরপরই কাবিন সেরে ফেলেন। গতকাল শুক্রবার রাতে বাকি আনুষ্ঠানিকতা সেরে স্ত্রী তুলতুল ইসলামকে ঘরে তোলেন এ অভিনেতা।

শুক্রবার (২৫ আগস্ট) রাতে রাজধানীর একটি কমিউনিটি সেন্টারে পরিবার ও আত্মীয়স্বজনদের নিয়ে ছোট পরিসরে সারেন বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা। জানা যায়, চাষী আলমের অভিনয়ের ভক্ত ছিলেন তার স্ত্রী তুলতুল। এরপর পরিচয় থেকে পরিণয়ে গড়ায় তাদের সম্পর্ক।

চাষী বলেন, ‘তুলতুলের এক ভাগনে আমার কাজের ভক্ত। একদিন উত্তরার এক দোকানে কয়েকজন বন্ধু মিলে চটপটি খাচ্ছিলাম। ভাগনের সঙ্গে সেখানে তুলতুলও চটপটি খেতে এসেছিল। আমাকে দেখে তুলতুল ও তার ভাগনে ছবি তুলল। আমার অভিনয়ের প্রশংসা করল। ওই দিনই প্রথম পরিচয়। আমার ফোন নম্বর নিয়েছিল। এর কিছুদিন পর ফোনে আমাদের দুজনের কথা আদান–প্রদান শুরু হয়। একটা পর্যায়ে পরস্পরের প্রতি ভালো লাগা কাজ করে। বেশি দিন তো প্রেমের স্বাদ নিতে পারলাম না। চাচি ও মায়ের চাপাচাপিতে তাড়াতাড়িই বিয়ে হয়ে গেল। তুলতুলের সঙ্গে আমার আংশিক বা স্বল্পদৈর্ঘ্য প্রেমের বিয়ে বলতে পারেন। হা হা হা।’

হানিমুনে ইউরোপ যাবেন জানিয়ে এ অভিনেতা বলেন, ‘হানিমুন করতে ইউরোপ যাব। তবে এখনই নয়। কারণ, আমার বেশ কয়েকটি নাটকের শিডিউল দেওয়া আছে। আগে নাটকগুলোর শুটিং শেষ করতে হবে। এরপর হাতে সময় নিয়ে হানিমুনে যাব।’

জানা গেছে, চাষী আলমের স্ত্রী তুলতুল ইসলামের ডাক নাম মোহনা। পরিবারের সঙ্গে থাকেন রাজধানীর বাড্ডায়। দুই বোন এক ভাইয়ের সবার ছোট সে। মা গৃহিণী, বাবা ব্যবসায়ী। মাঝে দুই বছর পড়াশোনা বন্ধ ছিল। এরপর গত বছর বেসরকারি একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিবিএ শেষ করেছেন মোহনা। আপাতত পড়াশোনা বন্ধ আছে তার।

‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ নাটকের মাধ্যমে অভিনেতা হিসেবে চাষী আলমের পরিচিতি ব্যাপকভাবে ছড়িয়েছে। তবে মারজুক রাসেলের সঙ্গে একাধিক নাটকে অভিনয় করে আলোচিত হয়েছেন তিনি। এবার ঈদে চাষী আলম অভিনীত বেশ কয়েকটি নাটক মুক্তি পায়। তার মধ্যে তুমুল সাড়া ফেলেছে কাজল আরেফিন অমি পরিচালিত দুটি নাটক ‘কিডনি’ ও ‘ফিমেল-৩’। নাটকগুলো বেশ কয়েক দিন ইউটিউব ট্রেন্ডিংয়ে শীর্ষে ছিল।